1. admin@amarsongbad24.com : admin :
  2. zihadononto15@gmail.com : Zihad Hokkani : Zihad Hokkani
ব্রহ্মপুত্র-তিস্তা এখন ধু ধু মরুভূমি - AMAR SONGBAD 24
রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪, ০৮:৪০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
পলাশবাড়ীতে খাদ্য গুদামে চাল-গম আত্মসাতের ঘটনায় শ্রমিকদের সংবাদ সম্মেলন পাউবোর সরকারি গাড়ি চাপায় বৃদ্ধা নিহতের ঘটনায় গাইবান্ধা সদর থানায় মামলা, চালক আটক এক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মাহমুদ মিয়া অপর বিদ্যালয়ে সভাপতি, নানা অনিয়মের অভিযোগ! গাইবান্ধায় প্রকৌশলী কল্যাণ সংস্থার উদ্যোগে বিশুদ্ধ ঠান্ডা খাবার স্যালাইন পানি বিতরণ জুয়া বসানোর অভিযোগে সাদুল্লাপুরে ইউপি মেম্বার আল-আমিনের বিরুদ্ধে মামলা! (ভিডিও ভাইরাল) সুন্দরগঞ্জের চরাঞ্চলে কর্মোক্ষম মানুষের মধ্যে খাদ্য সামগ্রী  বিতরণ ভিজিএফের চাল ওজনে কম দেয়ার অভিযোগ সাংবাদিককে লাঞ্চিত করলেন মেয়র সুন্দরগঞ্জ উপজেলা প্রেসক্লাবে আলোচনা দোয়া ও ইফতার  সুন্দরগঞ্জে বারো জুয়াড়িসহ গ্রেফতার-১৩ সুন্দরগঞ্জে জমি নিয়ে সংঘর্ষে নিহত এক, গ্রেফতার দুই

ব্রহ্মপুত্র-তিস্তা এখন ধু ধু মরুভূমি

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ
  • প্রকাশের সময়: রবিবার, ২ এপ্রিল, ২০২৩
  • ৬২
ব্রহ্মপুত্র-তিস্তা এখন ধু ধু মরুভূমি
ব্রহ্মপুত্র-তিস্তা এখন ধু ধু মরুভূমি

গাইবান্ধা উজান থেকে নেমে আসা ঢল ও পলি জমে ভরে উঠেছে গাইবান্ধার তিস্তা ও ব্রহ্মপুত্র নদী। খরস্রোতি অগভীর ভরা নদীগুলোতে পানি না থাকায় এখন মরুভূমিতে পরিণত হয়েছে। এরই মধ্যে এই নাব্যতা সংকটে প্রায় ৩৫ রুট নৌ-চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। বেকার হয়ে পড়েছে হাজারও নৌ- শ্রমিক ও জেলে সম্প্রদায়।

বিশেষ করে জেলার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার শান্তিরাম, কঞ্চিবাড়ি, চন্ডিপুর, শ্রীপুর তারাপুর, বেলকা, হরিপুর, ও কাপাসিয়া ইউনিয়নের উপর দিয়ে প্রবাহিত তিস্তা নদী দীর্ঘ ৫২ বছরেও ড্রেজিং এবং খনন করা হয়নি। সে কারণে তিস্তা ভরাট হয়ে এখন আবাদী জমিতে পরিনত হয়েছে। তিস্তা তার গতিপথ পরিবর্তন করে অসংখ্য শাখা নদীতে রুপ নিয়েছে। বছরে মাত্র ৬ মাস মূল নদীতে নৌকা চলাচল করে। গোটা বছর পায়ে হেঁটে পারাপার করতে হয় চরবাসিকে।

একই অবস্থা সদর, সাঘাটা ও ফুলছড়ি উপজেলা দিয়ে বয়ে যাওয়া নদীগুলোতে। এক সময় সুন্দরগঞ্জের পাঁচপীর, বেলকা, মীরগঞ্জ ও তারাপুর খেয়োঘাট হতে পীরগাছা, কাউনিয়া, উলিপুর, কুড়িগ্রাম, কাশিমবাজার, চিলমারি, রৌমারি, মোল্লার চর, ভূরুঙ্গামারি, দেওয়ানগঞ্জ, কামারজানি, গাইবান্ধা, সাঘাটা, ফুলছড়ি, জামালপুর, নারায়নগঞ্জ, বালাশিঘাট, ঢাকা, চট্টগ্রাম, ময়মনসিংহ রুটে নৌ-চলাচল করত। বর্তমানে নাব্যতা সংকটে সবরুটে নৌ-চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। তিস্তায় হাজারও নৌ-শ্রমিক ও জেলে সম্প্রদায় নৌকা চালিয়ে এবং মাছ ধরে সংসার চালাত। সেই সব জেলে ও নৌ-শ্রমিকরা এখন বেকার হয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছে। অনেকে বাপ দাদার পেশা পরিবর্তন করে অন্য পেশা জড়িয়ে পড়েছে। হরিপুর চরের নৌ-শ্রমিক রিয়াজ মিয়া জানান, প্রায় ১০

বছর আগে তার ৫টি নৌকা ছিল তার। নৌকার ব্যবসা দিয়ে সে সংসার চালাতেন। এখন মাত্র একটি নৌকা তার। সেটিও বছরের ৪ মাস মূল নদীতে চলাচল করে। নদী ভরে উঠায় এখন আর নৌকা চলে না। সে কারনে মাঝি মাল্লারা বেকার হয়ে পড়েছে। নদী খনন বা ড্রেজিং করলে হয়তো তিস্তা তার গতিপথ ফিরে পাবে। নদীতে পানি না থাকায় বালু চরে পড়ে থাকায় নষ্ট হয়ে যাচ্ছে নৌকা। বেলকা চরের জেলে ভোলারাম দাস জানান, তিস্তা-ব্রহ্মপুত্র নদীতে এখন আর জল থাকে না।

পলি জমে নদী ভরে গেছে। নদীতে আর মাছ ধরার কোন সুযোগ নেই। দীর্ঘ ১৫ বছর ধরে আমরা জেলেরা নদীতে আর মাছ ধরতে পারি না। সে কারনে অনেকে বাজারে মাছের ব্যবসা করছে। আবার অনেকে রিস্কা, ভ্যান চালিয়ে সংসার চালাচ্ছে। সদর উপজেলার মোল্লার চর ইউনিয়নের বাসিন্দা খয়বর রহমান বলেন, এখানকার প্রায় ১৫ টি নেী রুটের মধ্যে অধিকাংশ রুট বন্ধ রয়েছে। আর যে কয়টি চালু আছে সে পথেও স্বাভাবিকভাবে নৌকা চলাচল করতে পারছে না। বাদামের চরের ব্যবসায়ী আনছার আলী জানান, জেলা ও উপজেলা শহর হতে কাপাসিয়া ইউনিয়নের বাদামের চরের দূরত্ব প্রায় ৩৫ কিলোমিটার। নৌ-চলাচল বন্ধ হয়ে যাওয়ায় এখন বিভিন্ন যানবাহনে জেলা ও উপজেলা শহর হতে মালামাল নিয়ে এসে ব্যবসা করা অত্যন্ত কষ্টকর হয়ে পড়েছে। ঘোড়ার গাড়ি ও পায়ে হাঁটা ছাড়া অন্য কোন উপায়ে চরের মধ্যে চলাচলের কোন মাধ্যম নেই।

আজ থেকে ১৫ বছর আগে নৌ-রুটে মালামাল আনা নেয়া করা হত। গাইবান্ধা পানি উন্নয়ন বোর্ডের নিবার্হী প্রকৌশলী হাফিজুল হক জানান, তিস্তা নদীর সুন্দরগঞ্জ পয়েন্টে নদী ভাঙন রোধে জিও টিউব ও জিও ব্যাগ ফেলা প্রকল্প চলমান রয়েছে। এছাড়া নদী সংরক্ষনের জন্য ৪০০ কোটি টাকার একটি প্রকল্প বরাদ্দে অপেক্ষায় রয়েছে। নাব্যতা সংকট দুরীকরণে নদী খনন ও ড্রেজিং এর জন্য একাধিকবার আবেদন পাঠানো হয়েছে। এটি উপর মহলের সিদ্ধানের ব্যাপার। স্থানীয় সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার শামীম হায়দার পাটোয়ারী জানান, তিস্তার কড়াল গ্রাস হতে সুন্দরগঞ্জ বাসিকে রক্ষা করার জন্য জাতীয় সংসদে বক্তব্য দিয়েছি। নদী ভাঙন রক্ষায় জিও ব্যাগ, জিও টিউব ফেলার কাজ চলমান রয়েছে। নদী সংরক্ষণে একটি প্রকল্প অনুমোদন দিয়েছে সরকার। বরাদ্দ সাপেক্ষে কাজ শুরু করা হবে।

আমার সংবাদ২৪.কম

More News Of This Category
All Rights Reserved © 2023 Amar Songbad
Developed By :: Sky Host BD